Former Pak President Pervez Musharraf Gets Death Penalty from Special Court

Pervez Musharraf: মুশারফকে মৃত্যুদণ্ড দিল পাক আদালত

আন্তর্জাতিক

মামলার প্রেক্ষিতে প্রাক্তন পাক রাষ্ট্রপতি পারভেজ মুশারফের (Pervez Musharraf) মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিল সেদেশের আদালত। …

রাষ্ট্রের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা। দেশটি যে পাকিস্তান। আর এই মামলার প্রেক্ষিতে প্রাক্তন পাক রাষ্ট্রপতি পারভেজ মুশারফের (Pervez Musharraf) মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিল সেদেশের আদালত। দেশদ্রোহিতার মামলায় পাকিস্তানের প্রাক্তন সেনাপ্রধান মুশারফকে এই সাজা দিয়েছে লাহোরের এক বিশেষ আদালত। তিন সদস্যের একটি বেঞ্চ এই সাজা শুনিয়েছে। ২০০৭ সালের নভেম্বর মাসে দেশে জরুরি অবস্থা জারির জন্য মুশারফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করেছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। ২০১৩ সাল থেকে এই মামলা থেমে ছিল। কিন্তু গত ৫ই ডিসেম্বর এই মামলায়, ৭৬ বছরের মুশারফকে বয়ান দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল লাহোরের বিশেষ আদালত।

শরিফ-কন্যা মরপিয়ম নওয়াজ জানিয়েছেন, পারভেজ মুশারফের বিরুদ্ধে বিরাট রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে তদন্তের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তাঁর বাবা। যদিও বর্তমানে পাকিস্তানের বাসিন্দা নন মুশারফ। ২০১৬ সাল থেকেই চিকিৎসার জন্য তিনি দুবাইয়ে রয়েছেন। সেখানকার নাগরিকত্বও নিয়েছেন তিনি। ২০১৬ সালে মার্চ মাসে দুবাই যান তিনি। তারপর আর দেশে ফেরেননি। দুবাইতে থাকাকালীনই বিশেষ আদালতের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছিলেন তিনি। বলেছিলেন তাঁর অনুপস্থিতিতে যেন বিচার না হয়। মুশারফ বলেন শারীরিক ভাবে সুস্থ হয়ে আদালতের সামনে না আসা পর্যন্ত যেন বিশেষ আদালতের রায় যেন স্থগিত করা হয়।

২০০৮ সালে তিনি যান স্বেচ্ছানির্বাসনে। ২০১৩ সালের মার্চ মাসে পাকিস্তানে ফেরেন। ২০০৭ সালের ৩রা নভেম্বর, গোটা পাকিস্থানে জরুরি অবস্থা জারি করেন মুশারফ। সেইসময় প্রধান বিচারপতি সহ বেশ কয়েকজন বিচারপতিকে আটক করা হয়। সেসময় মুশারফের দাবি ছিল, নিজের পথ থেকে সরে গিয়ে বিচারবিভাগ, সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থা নির্মূলে প্রশাসন ও আইন বিভাগের মিলিতভাবে যে উদ্দেশ্য তা দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিল। প্রায় ৪২দিন পাকিস্তানে সেই সময় জরুরি অবস্থা জারি ছিল। ইমরানের হাতেই এখন অনেকটা সীমাবদ্ধ মুশারফের পরবর্তী পর্যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *