Pervez Musharraf Case Gets Hotter

Musharraf Case: আগে মারা গেলে তিন দিন ঝুলবে মরদেহ!

আন্তর্জাতিক

দেশদ্রোহীর অভিযোগে গত মঙ্গলবার পারভেজ মোশারফের ফাঁসির সাজা (Musharraf Case) দিয়েছিল আদালত। আর ১৬৭ পাতার …

একেবারেই ব্যতিক্রমী এক পাকিস্তানি সাজা। সেই সাজা আবার সে দেশের প্রাক্তন সামরিক প্রধানের। দেশদ্রোহীর অভিযোগে গত মঙ্গলবার পারভেজ মোশারফের ফাঁসির সাজা (Musharraf Case) দিয়েছিল আদালত। আর ১৬৭ পাতার রায় আজ প্রকাশ্যে এসেছে। সেই রায়েই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানা গেছে। সেখানে বলা হয়, মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আগে যদি পাকিস্তানের পারভেজ মোশাররফের মৃত্যু হয়, তা হলে তার মৃতদেহ ইসলামাবাদের ডি-চকে তিন দিন ঝুলিয়ে রাখা হবে। গত বুধবার রাতে এক ভিডিও বার্তায় মোশাররফ বলেছেন, ব্যক্তিগত বৈরিতা থেকে তাঁকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগও অস্বীকার করেছেন তিনি।

পাকিস্তানের পেশোয়ার হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি ওয়াকার আহমেদ শেঠের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বেঞ্চ দেশদ্রোহীর অভিযোগে প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট তথা প্রাক্তন সেনাপ্রধানকে মৃত্যুদণ্ডের সাজা দেয়। সেই সাহসী রায়ে বলা হয়েছে, এই মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত। দোষী সাব্যস্ত ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হচ্ছে। আইন প্রণয়নকারী সংস্থাগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে যে, পলাতক দোষী ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারের জন্য সব রকম চেষ্টা চালাতে হবে। কিন্তু সাজা কার্যকরের আগেই যদি দোষীর মৃত্যু হয়, তা হলে ইসলামাবাদের ডি-চকে তার মরদেহ নিয়ে আসতে হবে।

তারপর সেই মৃতদেহ তিন দিন ঝুলিয়ে রাখতে হবে। যদিও এই রায়ের পর পাকিস্তানের সেনাবাহিনী একে ‘বেদনাদায়ক’ ঘটনা আখ্যা দিয়েছে। পাকিস্তানের অ্যাটর্নি জেনারেল আনোয়ার মানসুর বলেছেন, মোশাররফ ন্যায়বিচার পাননি। তবে আইন বিশেষজ্ঞরা এই আদেশকে অসাংবিধানিক আখ্যা দিয়েছেন। তাঁরা বলছেন, এই আদেশ যদি প্রতীকীও হয়ে থাকে, তবে তাও অসাংবিধানিক। কারণ, দেশটিতে একবারই আদালত এক সিরিয়াল কিলারের (ক্রমিক খুনি) প্রকাশ্যে ফাঁসি ও ভুক্তভোগীর পরিবারের সদস্যদের সামনে তাঁর লাশ ১০০ টুকরা করার আদেশ দিয়েছিলেন। সে সাজা কখনো কার্যকর করা হয়নি। এবার কি হবে, তা সময় জানাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *